সাকিব আল হাসান আওয়ামীলীগের রাজনীতি করে না, এটিই কি তাঁর অপরাধ?

প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামীলীগি সভানেত্রী শেখ হাসিনার ছেলে সজিব ওয়াজেদ জয় ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৩ তারিখে বলেছিল, সাফল্য বা চমক দেখানো বেশ কঠিন যদিও জনগণ চমক দেখতে ভালো পায়। তদুপরি আবারও চমক দেখাতে পাবেন আপনারা, একটু অপেক্ষা করুন। আসছে ৩ দিন একটু লক্ষ করবেন। আমরা কিঞ্ছিত ভিন্নরকম কৌশল গ্রহণ করেছি আমাদের সফলতা ও বিরোধীদের প্রোপাগান্ডা আপনাদের কাছে তুলে ধরার জন্য।

হ্যাঁ জয় সাহেব সত্যি চমক দেখিয়েছিলেন । ৩ দিন পরের সেই চমক কি জানেন ? তিনি বাংলাদেশের মানুষের প্রিয় ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান কে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ‘রূপকল্প ২০২১, গত ৫ বছরের অর্জন, আগামী ৫ বছরের অঙ্গীকার’ শীর্ষক এ অনুষ্ঠানে আওয়ামীলীগ হিসেবে পরিচিত করিয়ে দিতে চেয়েছিলো বাংলাদেশের মানুষের কাছে । সে রাজি না হওয়ায় তার পেছনে আওয়ামীলীগ সুকৌশলে ভারতীয় দালাল পাপনকে লাগিয়ে দেয়।

টি-২০ ওয়ার্ল্ড-কাপ ২০১৪ তে ভারতের সাথে বাংলাদেশ জিততে না পারার জন্য সামান্য অপরাধের শাস্তি হিসেবে সুকৌশলে সাকিবকে ৩ ম্যাচের জন্য সাসপেন্ড করে বি সি বি । এর পর সাকিবের নামে শুরু হল একের পর এক অভিযোগ। সাকিব আইপিএল, বিগব্যাশ, সিপিএল, শ্রীলঙ্কা, ইংল্যান্ড সব জায়গায় খেলে এল। কিন্তু কোথাও তার নামে একটা অভিযোগ শুনতে পেলাম না, এমন কি বাংলাদেশের কোন টিম-মেটেরও কোন অভিযোগ নেই তার বিরুদ্ধে। যতো অভিযোগ শুধুই আওয়ামী লীগের এমপি পাপন আর অন্য বিসিবি কর্মকর্তাদের।

সর্বশেষ খবরে জানা যায়, ইন্ডিয়ার দালাল পাপন এর ক্রিকেট বোর্ড সাকিবকে বিনা অপরাধে কে ছয় মাসের জন্য নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে শুধু আওয়ামীলীগে যোগদান না করার দায়ে। তাই আসুন আমরা সকলে মিলে এর তীব্র প্রতিবাদ জানাই।আমরা সবাই কি থাকবো না বাংলাদেশের হৃদস্পন্দন সাকিবের পাশে এই ক্রান্তি লগ্নে?

Leave a Reply

Your email address will not be published.