বাকশালী সরকারের তথ্য সন্ত্রাস ও অন্যান্য

দেশ নায়েক তারেক রহমানের ব্যক্তিগত তথ্য প্রকাশের সূত্র ধরে কিছু কথা বলবার প্রয়োজন রয়েছে। এই একনায়ক শেখ হাসিনা সরকার যেভাবে অবলীলায় মানুষের ব্যাক্তিগত তথ্য প্রকাশ করছে, পাচার করছে কিংবা ইতরামীর চূড়ান্ত করছে তা বর্ণনাতীত।

একটা পলিটিকালি ইনকারেক্ট কিংবা নৈতিকতার মাপকাঠিতে অন্যায় কাজকে যখন সঠিক বলে বার বার চেষ্টা করা হয় তখন এই সমাজ ব্যবস্থা, এই রাষ্ট্র এগুলো নিয়ে হতাশ হতেই হয়। বলছি দেশ নায়েক তারেক রহমানের প্রাইভেট ডকুমেন্ট প্রকাশের ব্যাপারটি নিয়ে। গতকাল এই বিষয়ে আমি একটি অনুষ্ঠানে এবং একই সাথে মাননীয় পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর ফেসবুকে আমি আমার বক্তব্য পেশ করেছি। তারপর যেই অভিজ্ঞতা আমার হয়েছে সেটির জন্য হয়ত আমি মানসিক ভাবে প্রস্তুত ছিলাম বলে সহজ ভাবে নিতে পারছি সব কিছু কিন্তু এই প্রজন্মের তরুন কিংবা পলিটিকালি সচেতন ব্যক্তিদের ভাবনা আমাকে রীতিমত ব্যাথা দিয়েছে।

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর ফেসবুকে আমি মন্তব্য করবার পর নুরুল টিপু নামে একজন আওয়ামী দাস যিনি লন্ডনে থাকেন, তিনি আমাকে খুব তীব্র ভাষায় আক্রমণ করে একটি মন্তব্য দিয়েছেন। আমাকে নোংরা সব গালাগালে নানাবিধ আখ্যায় আখ্যায়িত করেছেন। আমাকে তিনি অকথ্য ভাষায় গাল দিয়ে নিজের শিক্ষার প্রমাণ দিয়ে তার উপর আমাকে অশিক্ষিত ও মূর্খ বলেছেন। আমাকে তিনি মূর্খ বলেছেন, এতে করে আমার দুঃখ নেই। আমার তো মনে হয় এই অসীম পৃথিবীর অনেক কিছু না জানা আমি আসলে মূর্খই। কেন তিনি এইভাবে কথা বলছেন বা বলার চেষতা করেছেন আমি জানিনা। জানবার প্রয়োজন বোধ-ও করছিনা। টিপু ভাই তাঁর মগজের বা চিন্তার ধারনের বাইরে যেতে পারবেন না, বা সেটি তাঁর পক্ষে সম্ভব নয় হয়ত। ফলে আমার চিন্তাকে তিনি একটি সুনির্দিষ্ট উপমায় বেঁধে ব্যক্তিগত আক্রমণে যাবেন, এটা বুঝতে পারাটা খুব সম্ভবত কষ্টের নয়।

তিনি স্পস্ট করে বলেছেন যে রাজনীতি বিদ্দের ব্যাপারে প্রাইভেট বলে কিছু নেই। শুধু তিনিও নন, অনেকেই একটি কথা বার বার বলছেন যে বি এন পি চ্যালেঞ্জ করেছে বলেই ব্যাক্তিগত তথ্য প্রকাশ বাঞ্ছনীয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। অবস্থা এমন দাঁড়িয়েছে যে, আমি এসব শুনে ও পড়ে কি যুক্তি দেব সেটিও ভুলে গেছি।

দেশ নায়েক তারেক রহমান তার নাগরিকত্ব বর্জন করেছেন বলে দাবী করেছিলেন। আর সেটির প্রতিবাদ করেছিলো বি এন পি। তারা এই প্রতিবাদের পাশাপাশি খুবই সঠিক উপায়ে আইনের আশ্রয় নিয়েছে। আমি খুব এপ্রিশিয়েট করেছিলাম তাদের এই স্টেপ কে। আওয়ামীলীগের মত লগি বৈঠা দিয়ে মানুষ না মেরে, খুন না করে, পেট্রোল বোম না মেরে, তাদের মত হত্যা না করে, গ্রেনেড না ছুঁড়ে আইনী পথে মোকাবেলা করতে চাওয়াকে এপ্রিশিয়েট করাই উচিৎ।

আর এই আইনী চিঠিকে আইনী পথে মোকাবেলা না করে একেবারে টিপিকাল কলতলার ঝগড়ার মত প্রতি মন্ত্রী সাহেব, কয়েকজন ব্যাক্তির ব্যাক্তিগত তথ্য প্রকাশ করেছেন বি এন পি’র চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করবার জন্য।

বিরোধী পক্ষের উষ্কানিতে যদি রাষ্ট্র তার গতিপথ বদলায়, অন্যায় করে তাহলে এটি অনেক বড় পরাজয়। রাষ্ট্র হবে সহনশীল, রাষ্ট্র তাঁর নিজের প্রনীত আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থাকবে। মনে রাখতে হবে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যেমন আওয়ামীলীগ সমর্থকের প্রধানমন্ত্রী ঠিক তেমনি করে বি এন পি বা জামাতের সমর্থকদেরও প্রধানমন্ত্রী। তিনি সকলের জন্য। তিনি রেগে গেলে, আমরা সবাই হেরে যাব। তিনি ভুল করলে আমরা সবাই লজ্জা পাব কিংবা ক্ষতিগ্রস্থ হব। এগুলো অনুধাবন করতেই হবে।

এই যে তথ্যগুলো প্রকাশ করা হোলো, সেটি কি শুধু তারেক রহমানের তথ্যই প্রকাশ করা হলো? উত্তর হচ্ছে না, তা নয়। এখানে তারেক রহমানের আন্ডার এইজ একটি মেয়ের হোম অফিসের রেফারেন্স রয়েছে, তার স্ত্রী রয়েছেন, মইনুল নামে আরেকজন ভদ্রলোক রয়েছেন।

সবচাইতে বড় কথা হচ্ছে হোম অফিসের এই এলেইজড চিঠি দিয়ে প্রতিমন্ত্রীর ভাষ্য একেবারেই প্রমাণিত হয়না। হোম অফিস যে চিঠি দিয়েছে, তাতে করে কখনোই প্রমাণিত হয়না তারেক রহমান নাগরিকত্ব বর্জন করেছেন কি করেন নি। আমি সেসব টেকনিকাল আলোচনায় একেবারেই যাচ্ছিনা। এসব নিয়ে মন্তব্য করবার রুচী আমার নেই।

আমি শুধু যে কথাটি বার বার বলবার চেষ্টা করছি তা হলো, আমরা এই প্রজন্ম আমাদের দেশের চলমান যে পলিটিকাল ট্রেন্ড, এটির পরিবর্তন চাই।

দেশ নায়েক তারেক রহমান সম্পূর্ণভাবে আমার পলিটিকাল আদর্শের নেতা, তিনি আমার আদর্শ। তার রাজনৈতিক বক্তব্য, তার চিন্তা, তার পলিটিকাল মুভমেন্ট আমি এসবের সকল কিছুর সাথেই আমি একমত এবং তাঁর পথেই আমার যাত্রা। কিন্তু অন্যদিকে আওয়ামীলীগের উঠতি নেতা প্রধানমন্ত্রী পূত্র সজীব ওয়াজেদ জয়কে আমি অপছন্দ করি, তার আদর্শ আমার ভালো লাগেনা। সে আমার বিরুদ্ধ স্রোতের যাত্রী। কিন্তু এই যে আমি একমত নই কিংবা তার বিরুদ্ধ স্রোতের যাত্রী, এটিকে আমি কিভাবে ট্যাকেল করব? কিভাবে আমি সজীবের সাথে লড়াই করব? আমি কি তার সাথে রিভলবার দিয়ে লড়াই করব? তলোয়ার দিয়ে করব? চাপাতি দিয়ে করব? পুলিশ দিয়ে করব? ছুরি দিয়ে করব? গালাগাল দিয়ে করব? তার ব্যাক্তিগত তথ্য প্রকাশ করে করব?

আমার উত্তর হচ্ছে, না। আমি সজীবের আদর্শের সাথে লড়াই করব আমার প্রজ্ঞা দিয়ে। আমার মেধা দিয়ে। আমার মঙ্গল বিবেচনাবোধ দিয়ে, আমার নৈতিকতা দিয়ে, আমার শিক্ষা দিয়ে।

আমরা যদি আমাদের দেশের চলমান পলিটিকাল ট্রেন্ড গুলো পরিবর্তন না করতে পারি, আমরা এত পড়াশোনা, এত বই পড়ে যদি টিপিকাল নোংরা রাজনীতি করি তাহলে এই দেশ আমাদের অভিশাপ দেবে।

এত বছর ব্রিটেনে থেকে, এত এত দেশে ঘুরে, এত এত অভিজ্ঞতা নিয়ে, এত এত বই পড়ে আমি তাহলে কি শিখলাম? আমি আমার শিক্ষার প্রতিফলন এই দেশের রাজনীতিতে রাখতে চাই। আমার মেধার প্রমাণ আমি দিতে চাই একটা সুস্থ রাজনীতির ধারা চালু করে।

আমি যদি লেখালেখি করে এই প্রজন্মের কাছে ঘৃণার বাণীই উগড়ে দেই, কাউকে পরিবর্তন করতে না পারি তাহলে কি প্রয়োজন এসব লেখালেখির? যদি তরুনরা আমাদের দেখে না শেখে তাহলে, আমাদের এই শিক্ষা, আমাদের এই অভিজ্ঞতার সামান্যতম মূল্য রইবে না।

উত্তর প্রজন্মে আমার নাম ঘৃণার অক্ষরে লেখা থাকবে। ঠিক যেমন এই মুহুর্তে আওয়ামীলীগের নাম ঘৃণার অক্ষরে লেখা হচ্ছে, ঠিক তেমন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.